Skip to content

এই ৫টি ভুল ডুবিয়ে দিল অনিল আম্বানিকে, জেনে নিন ভাই মুকেশ আম্বানি’র সাফল্যের রহস্য

    img 20230420 190103

    এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি “মুকেশ আম্বানি” (Mukesh Ambani) ৬৬ বছর পূর্ণ করেছেন। তার নেতৃত্বে, রিলায়েন্স নতুন উচ্চতা অর্জন করছে এবং এটি দেশের সবচেয়ে মূল্যবান কোম্পানি। অন্যদিকে তার ছোট ভাই অনিল আম্বানি দেউলিয়াত্বের সঙ্গে লড়াই করছেন। কীভাবে এক ভাই এই সাফল্যের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছলেন এবং অন্যজন কীভাবে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে? এর জন্য রয়েছে অনেক কারণ।

    img 20230420 190158

    রিলায়েন্স গ্রুপটি ১৯৫৮ সালে প্রয়াত ধিরুভাই আম্বানি দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, এবং আজ সারা বিশ্বে এর স্টিং বাজছে। ২০০২ সালে তার মৃত্যুর পর, দেশের এই বড় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে একটি বিভাজন হয় এবং কোম্পানিগুলি ধীরুভাইয়ের দুই ছেলের মধ্যে ভাগ হয়ে যায়। বড় ছেলে মুকেশ আম্বানিকে পুরোনো ব্যবসায় সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল, যার মধ্যে পেট্রোকেমিক্যাল, টেক্সটাইল, তেল-গ্যাস ব্যবসা অন্তর্ভুক্ত ছিল।

    img 20230420 190127

    ছোট ছেলে অনিল আম্বানির খাতায় নতুন যুগের ব্যবসা এসেছিল। তাকে টেলিকম, ফিন্যান্স এবং এনার্জি ব্যবসার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। নতুন যুগের ব্যবসা পেয়েও বিশেষ কিছু করতে না পারায় অনিলকে আজ দেউলিয়া হওয়ার মুখে পড়তে হচ্ছে। অন্যদিকে, মুকেশ আম্বানি তার বোঝাপড়া দিয়ে ব্যবসাকে উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন, এবং আজ তিনি এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।

    অনিল আম্বানির টেলিকম, পাওয়ার এবং এনার্জি ব্যবসা ছিল, যা নতুন যুগে সাফল্যের গ্যারান্টি বলে মনে করা হয়। এসব খাতে তিনি দেশের একজন বড় খেলোয়াড় হতে চেয়েছিলেন, এবং তিনি অনেক উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু সঠিক পরিকল্পনার অভাবে লাভের পরিবর্তে তাকে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়েছে।

    img 20230420 190543

    ২০০৮ সালে, দেশভাগের কাছাকাছি সময়ে তাঁর কাছে আসা সংস্থাগুলির ভিত্তিতে অনিল আম্বানি বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে ছিলেন, যেখানে আজ পরিস্থিতি এমন যে তাঁর সংস্থাগুলি বিক্রি হওয়ার পথে। প্রাথমিক কারণ, অনিল আম্বানি যখন নতুন যুগের ব্যবসা পেয়েছিলেন, তখন তিনি সঠিক পরিকল্পনা ছাড়াই ব্যবসাটি এগিয়ে নিতে তাড়াহুড়ো করেছিলেন, যার জন্য তাকে অনেক খরচ হয়েছিল।

    img 20230420 190554

    কোনো প্রস্তুতি ছাড়াই একের পর এক নতুন প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করতে থাকেন। সেই সময়ে, যে নতুন প্রকল্পগুলিতে অনিল আম্বানি টেলিকম সেক্টরের রাজা হওয়ার জন্য বাজি ধরছিলেন, তাতে খরচ অনুমানের চেয়ে বেশি আসছিল এবং আয় ছিল নগণ্য। এটি তার পতনের একটি বড় কারণ।

    বিশেষজ্ঞদের মতে, অনিল আম্বানির পতনের অনেকগুলি কারণের মধ্যে একটি হল একটি ব্যবসায় তার মনোযোগের অভাব, এবং তিনি এক ব্যবসা থেকে অন্য ব্যবসায় ঝাঁপিয়ে পড়েন। বাস্তবায়নে ত্রুটির কারণে তার অনেক প্রকল্পে প্রচুর অর্থ ব্যয় হয়েছে।

    img 20230420 190143

    ব্যয় বৃদ্ধির কারণে, প্রকল্পগুলি সম্পূর্ণ করার জন্য তাকে অতিরিক্ত ইক্যুইটি সংগ্রহ করতে হয়েছিল এবং ঋণদাতাদের কাছ থেকে ধার নিতে হয়েছিল। ঋণের বোঝা বাড়তে থাকে এবং যেসব প্রকল্পে তিনি ঋণের টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন, সেগুলো থেকেও রিটার্ন পাওয়া যায়নি।

    img 20230420 190115

    অনিল আম্বানির বেশিরভাগ ব্যবসা-সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত উচ্চাকাঙ্ক্ষার জন্য নেওয়া হয়েছিল। এছাড়া কোনো কৌশল ছাড়াই প্রতিযোগিতায় ঝাঁপিয়ে পড়তে আগ্রহী ছিলেন তিনি। এই কারণে ঋণের বোঝা এবং ২০০৮ সালের বৈশ্বিক মন্দা তাকে পুনরায় ওঠার সময় দেয়নি।

    Discover more from Entertainment News in Bengali, Latest Tollywood and Bollywood news in Bangla

    Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

    Continue reading