Skip to content

শুধুমাত্র নোট নয়, এবার ATM মেশিন থেকে বের হবে কয়েনও! শুরু হচ্ছে ১২ টি শহরে

    img 20230211 172715

    চলার পথে অনেকেই নিজেদের কাছে বেশি পরিমাণে নগদ অর্থ রাখেন না। সময় বুঝে প্রয়োজন মত অনেকে আবার এটিএম কার্ডের মাধ্যমে এটিএম (atm) থেকে টাকা তুলে থাকেন। সেক্ষেত্রে এতদিন যাবৎ এটিএম থেকে শুধুমাত্র নোট বের হতেই দেখা যেত। তবে এবার শোনা যাচ্ছে, শুধুমাত্র নোটই নয়, এবার থেকে নাকি কয়েনও (coin) বের হবে এটিএম থেকে।

    বুধবার তিন দিনের আরবিআই এমপিসি বৈঠকের পরে, গভর্নর শক্তিকান্ত দাস টানা ষষ্ঠবারের জন্য রেপো রেট বৃদ্ধির ঘোষণার সঙ্গে QR ভিত্তিক কয়েন ভেন্ডিং মেশিনগুলির একটি পাইলট প্রকল্প চালু করারও ঘোষণা করেছিলেন।

    img 20230211 172815

    এবিষয়ে, আরবিআই গভর্নর শক্তিকান্ত দাস জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক QR ভিত্তিক ভেন্ডিং মেশিনের একটি পাইলট প্রকল্প চালু করতে চলেছে। এর উদ্দেশ্য কয়েনের প্রাপ্যতা বাড়ানো। তিনি বলেছিলেন যে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক প্রাথমিক পর্যায়ে দেশের ১২ টি শহরে এটি শুরু করতে চলেছে। এই QR কোড ভিত্তিক ভেন্ডিং মেশিনগুলি UPI এর মাধ্যমে ব্যবহার করা হবে এবং সেখান থেকে নোটের পরিবর্তে কয়েন বের হবে। তবে এই পাইলট প্রকল্পের জন্য কোন ১২ টি শহরকে বেছে নেওয়া হয়েছে, তা প্রকাশ করা হয়নি।

    এই কয়েন ভেন্ডিং মেশিনগুলি থেকে যেকোনো গ্রাহক তার UPI অ্যাপের মাধ্যমে মেশিনের উপরে QR কোড স্ক্যান করে কয়েন তুলতে পারবেন। গ্রাহক যে পরিমাণ কয়েন উত্তোলন করবেন, সেই পরিমাণ অর্থ তাঁর নিবন্ধিত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে ডেবিট করা হবে। একটি খুব সহজ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে, আপনি যেভাবে এটিএম-এ গিয়ে আপনার ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে নোট তুলতে পারবেন, সেই একইভাবে আপনি এই মেশিন থেকে QR কোড স্ক্যান করে কয়েন তুলতে পারবেন। আপাতত ১২ টি শহরে শুরুর পরিকল্পনা করা হলেও, পরবর্তীতে এই পাইলট প্রকল্পের সাফল্যের ভিত্তিতে এটি সম্প্রসারিত করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

    img 20230211 172735

    যেখানে আরবিআই গভর্নর রেপো রেট বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশের সাধারণ মানুষকে হতবাক করেছেন, তিনি এই ধরনের নতুন ঘোষণা থেকে স্বস্তি দিতেও কাজ করেছেন। এমপিসিতে আলোচনার পর গৃহীত সিদ্ধান্ত সম্পর্কে তথ্য দিয়ে শক্তিকান্ত দাস আরও বলেছেন, এখন বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের জন্য ইউপিআই সুবিধা চালু করার কথা ভাবা হচ্ছে।

    আরবিআই গভর্নর আরও বলেছিলেন, ভারতীয় অর্থনীতি গত তিন বছরে বেশ কয়েকটি বড় ধাক্কা সফলভাবে মোকাবেলা করেছে এবং আগের চেয়ে আরও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। বিশ্বও ভারতের এই কাজ দেখে প্রশংসা করেছে। তিনি তাঁর বিবৃতিতে বলেছিলেন,  ‘আমি এখানে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর কথা স্মরণ করছি, ভারতের ভাগ্যের প্রতি আপনার বিশ্বাস কখনই হারাবেন না’।